সাদিয়ার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন দেন স্বামী

সিটিভি নিউজের ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন

হাসপাতালে শংকটাপন্ন অগ্নিদগ্ধ সাদিয়া আক্তার ও অভিযুক্ত স্বামী আসাদ সরকার।

সিটিভি নিউজ।।     ফয়জুল ইসলাম ফয়সাল, মুরাদনগর  সংবাদদাতা জানান ===
২০২০ সালের ২৬ অক্টোবর পারিবারিক ভাবে সাদিয়ার আসাদের বিয়ে হয়। বিয়ের পর ভালোই চলছিলো তাদের সংসার। কিন্তু গত ৫/৬মাস ধরে যৌতুকের টাকার জন্য সাদিয়াকে চাপ দিতে থাকে আসাদ। বাবার বাড়ি থেকে ৫ লক্ষ টাকা না দিলে আগুনে পুড়িয়ে মারবে বলে হুমকি দেন স্বামী আসাদ। এরপর থেকে যৌতুকের ৫ লক্ষ টাকার জন্য বিভিন্ন সময়ে সাদিয়ার ওপর পাশবিক নির্যাতন শুরু করে পাষ- স্বামী আসাদ সরকার। নির্যাতন সহ্য করেই এতদিন সাদিয়া আসাদের সংসার করছিলেন। চলতি বছরের ৪ ফেব্রুয়ারি সাদিয়ার একটি ছেলে বাচ্চা হয় এর কয়েক ঘন্টা পর মারা যায়। এর পর থেকে সাদিয়াকে ৫ লক্ষ টাকা যৌতুক দিতে আবারও চাপ প্রয়োগ করেন স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন।
এ দিকে, সাদিয়ার বাবা অপুল সরকার প্রবাস থেকে বাড়ি ফিরে বর্তমানে বেকার জীবন যাপন করছে। বেকার বাবার কাছে এত টাকা চাইতে পারবেন না বলে জানালে সাদিয়ার ওপর বিভিন্ন সময়ে কয়েক দফা নির্যাতন করে স্বামী আসাদ। এক পর্যায়ে সাদিয়াকে আগুনে পুড়িয়ে মেরে ফেলবে বলেও হুমকি দেন আসাদ। এমন পারিবারিক কলহ চলছিল আসাদ সাদিয়া সংসারে। পরে গত শনিবার সকাল ৮টার দিকে সাদিয়ার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন স্বামী আসাদ। আগুন দেওয়ার পর প্রতিবেশীদের জানানো হয় ‘গ্যাসের চুলা থেকে আগুনে দগ্ধ হয়েছে সাদিয়া। পরে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও পরে অবস্থা আশংকাজনক অবস্থায় ঢাকার শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। এতদিন এ খবর কেউ না জানলেও বৃহস্পতিবার সকালে বার্ন ইউনিট থেকে সাদিয়া একটি ভিডিওবার্তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে চারদিকে তোলপাড় শুরু হয়। গত শনিবার সকাল ৮টায় দেবিদ্বার উপজেলার পৌর এলাকার বানিয়াপাড়ায় স্বামীর ভাড়া বাসায় এ ঘটনা ঘটে।
অগ্নিদগ্ধ সাদিয়া উপজেলার পদ্মকোট গ্রামের অপুল সরকারের মেয়ে। তার স্বামী আসাদ সরকার স্থানীয় গুনাইঘর গ্রামের নুরু সরকারের ছেলে। সাদিয়া আক্তার বর্তমানে ঢাকা শেখ হাসিনা হাসপাতালে বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসাধীন আছেন। ঘটনার পর থেকে আসাদ পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ বুধবার রাতে তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে অভিযুক্ত আসাদকে গ্রেফতার করে।
হাসপাতাল থেকে সাদিয়ার ছোট বোন নাদিয়া আক্তার জানায়, তার বোনকে বিয়ের পর থেকে যৌতুকের জন্য নির্যাতন করেছে আসাদ ও তার পিরবার। তার শরীরের প্রায় ৪০ শতাংশ পুড়ে গেছে। শরীরের মাংস পুড়ে হাড্ডিতেও গিয়ে লেগেছে। আপুর অবস্থা শংকটাপন্ন। আমরা এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি।
দেবিদ্বার থানার ওসি আরিফুর রহমান জানান, এ ঘটনায় বুধবার রাতে কয়েকজনের নামে একটি মামলা হয়েছে। ঘটনার প্রধান অভিযুক্ত স্বামী আসাদকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালতে সোপর্দ করলে বিজ্ঞ বিচারক তাকে কুমিল্লার কেন্দ্রিয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সংবাদ প্রকাশঃ  ২৮-০-২০২২ইং সিটিভি নিউজ এর  (সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে দয়া করে ফেসবুকে লাইক বা শেয়ার করুন) (If you think the news is important, please share it on Facebook or the like  See More =আরো বিস্তারিত জানতে ছবিতে/লিংকে ক্লিক করুন=  

Print Friendly, PDF & Email