শীঘ্রই সমুদ্র গিলতে পারে গোটা মালদ্বীপ দেশ

সিটিভি নিউজের ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন

সিটিভি নিউজ।। যে দেশে বাস করছেন কল্পনা করুন আগামী কয়েক বছরে সেই দেশটি মানচিত্র থেকে হারিয়ে গেছে, কেমন লাগবে? প্রকৃতপক্ষে, এই ভাবনাটি ভীতিজনক। তবে অনেক দেশ আসলেই এমন পরিস্থিতির মুখে দাঁড়িয়ে। আফ্রিকার (Africa) দেশ সেশেলসের (Seychelles) একজন শিক্ষার্থী বর্তমানে মিশরে অনুষ্ঠিত COP27 শীর্ষ সম্মেলনে অংশ নিয়েছিলেন। দেশে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ভবিষ্যতের সংকট সম্পর্কে সমগ্র বিশ্বকে সতর্ক করেন তিনি।  সেশেলসের ২১ বছর বয়সী নাথালিয়া লয়েন দেশের প্রতিনিধি হিসাবে COP27-এ অংশ নেন। নাথালিয়া একজন জলবায়ু কর্মী। দেশে জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সৃষ্ট ক্ষতি কমানোর প্রয়াস করছেন তিনি।

আমাদের বাচ্চারা কখনই জানবে না সেশেলস কেমন ছিল  নাথালিয়া শীর্ষ সম্মেলনে তিনি বলেন, সেশেলসের আবহাওয়ার হঠাৎ পরিবর্তন হচ্ছে। সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতাও বাড়ছে। নাথালিয়া বলেন, এখন কিছু না করলে, আমাদের শিশুরা কখনই জানবে না সেশেলস কেমন ছিল।

নাথালিয়া বলেন, এই উদ্বেগ শুধু আমাদের দেশের জন্য নয়, সংস্কৃতি ও সভ্যতার জন্যও। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে উদ্বাস্তু এবং অভিবাসনের সমস্যা আগামী সময়ে সমগ্র বিশ্বকে প্রভাবিত করবে।

শীর্ষ সম্মেলনের সময়, সেশেলসের প্রেসিডেন্ট ওয়াভেল রামাক্লাওয়ান বলেন, দেশ জলবায়ু পরিবর্তনের দ্বারা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত।

প্রেসিডেন্ট আরও বলেন, আমাদের দ্বীপের বনাঞ্চল সারা দেশের নির্গমন শোষণ করে। এই কারণে, জলবায়ু পরিবর্তনে আমাদের অংশ একেবারে শূন্য, তবুও আমাদের দ্বীপগুলি অদৃশ্য হয়ে যাচ্ছে। নাথালিয়া বলেন, তিনি চান যে বিশ্বের সমস্ত মহাসাগর রক্ষার জন্য পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।

ছোটবেলা থেকেই নাথালিয়ার মনোযোগ ছিল পরিবেশের সুরক্ষায়। নাথালিয়া সেশেলসের অনেক সমুদ্র সৈকত পরিষ্কার করার প্রচার চালিয়েছে। পিস বোট নামের একটি এনজিওর ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবেও নিযুক্ত হন। নাথালিয়াও পিস বোট এনজিও এবং সেশেলস সরকারের পক্ষে প্রতিনিধি হিসাবে COP 27-এ অংশগ্রহণ করেছেন।

বড় দাবি করলেন রাষ্ট্রপুঞ্জের জলবায়ু বিশেষজ্ঞরা

রাষ্ট্রপুঞ্জের জলবায়ু বিশেষজ্ঞদের মতে, গত ২০ বছরে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা প্রায় ৬ থেকে ১০ ইঞ্চি পর্যন্ত বেড়েছে। এটা উদ্বেগের বিষয় যে বর্তমানে এর মাত্রা ক্রমাগত বাড়ছে। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, বৈশ্বিক উষ্ণায়ন এভাবে চলতে থাকলে এই শতাব্দীর শেষ নাগাদ ভারত মহাসাগর ও প্রশান্ত মহাসাগরে পানির স্তর ৩৯ ইঞ্চি বেড়ে যাবে।

জলবায়ু পরিবর্তনের উপর রাষ্ট্রপুঞ্জের একটি গবেষণা অনুসারে, ২২ শতকের মধ্যে মালদ্বীপ, নাউরু, কিরিবাতি, মার্শাল এবং টুভালুর মতো অনেক দেশে মানুষের নাম হারিয়ে যাবে। এই সমস্ত দেশ সম্পূর্ণভাবে পানিতে তলিয়ে যাবে, যার ফলে প্রায় ৬ লক্ষ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হবে এবং তারা গৃহহীন হয়ে পড়বে। এই লোকেদের কোনও দেশই থাকবে না।

ভবিষ্যৎ পরিস্থিতি বিবেচনায় মালদ্বীপও প্রস্তুতি শুরু করেছে। মালদ্বীপ এমন একটি শহর তৈরি করছে যা সম্পূর্ণরূপে জলের উপর থাকবে। এই শহরে হাসপাতাল, মার্কেট ও সরকারি ভবন থাকবে, যা সম্পূর্ণ জলে তৈরি হবে। মালদ্বীপের এই ভাসমান শহরটি ২০২৫ সালের মধ্যে শুরু হতে পারে।

সংবাদ প্রকাশঃ  ১১-১১-২০২২ইং সিটিভি নিউজ এর  (সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে দয়া করে ফেসবুকে লাইক বা শেয়ার করুন) (If you think the news is important, please share it on Facebook or the like  See More =আরো বিস্তারিত জানতে ছবিতে ক্লিক করুন=  

Print Friendly, PDF & Email