শিশুর মনোযোগ বাড়াবেন যেভাবে

সিটিভি নিউজ ।।  লাইফস্টাইল।।     বাচ্চাদের মধ্যে মনোযোগের সমস্যা বড়দের থেকে বেশি হয়। কারণ সব শিশুর মনই চঞ্চল এবং তারা সর্বদা অস্থির থাকে। তাই মনোযোগের অভাব হওয়া বাচ্চাদের মধ্যে খুবই সাধারণ ব্যাপার।

শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম

মস্তিষ্কে পর্যাপ্ত পরিমাণে অক্সিজেনের সরবরাহ মস্তিষ্ককে সর্বোত্তম কাজ করতে সহায়তা করে। তাই আপনার বাচ্চাকে কিছু বেসিক শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম করতে বলতে পারেন। এটি আপনার সন্তানের মনোযোগ বৃদ্ধি করতে সহায়তা করতে পারে। যেমন- সাবানের বুদবুদ ফোলানো, হারমোনিকার মতো বাদ্যযন্ত্র বাজানো। এই সকল মজাদার শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম বাচ্চাদের মধ্যে উৎসাহ বৃদ্ধি করতে অত্যন্ত কার্যকর।

বড় কাজকে ছোটো ছোটো কাজে ভাগ করে দেন
একটি বড় কাজ সম্পন্ন করতে, সাধারণত বেশি মনোযোগের প্রয়োজন হয়। আর বড় কাজ সম্পন্ন করা বেশ সময় সাপেক্ষ। তাই বেশিভাগর ক্ষেত্রে বাচ্চারা আগ্রহ হারিয়ে ফেলে এবং কাজে মনোযোগ বসানোও খুবই কঠিন হয়ে ওঠে। তাই বড় কাজগুলোকে ছোটো ছোটো কাজে বিভক্ত করে দিন। এতে বাচ্চাদের কাজ করার আগ্রহ বজায় থাকবে এবং ছোটো কাজে মনোনিবেশ করাও সহজ হবে। হোমওয়ার্ক করা, নতুন কিছু শেখা এবং বাড়ির কাজ করার সময় এই পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারেন। ছোটো ছোটো কাজ সম্পন্ন করার জন্য কম সময় লাগবে এবং অগ্রগতিতে সাহায্য হবে।

কাজের সাথে আনন্দ করার সুযোগও বজায় রাখুন

ছোট বাচ্চারা যদি একই সাথে বেশ কয়েকটি কাজে জড়িত থাকে, তবে তারা ক্লান্ত হয়ে পড়তে পারে। তাই মনোযোগ বৃদ্ধি করতে কাজের পাশাপাশি মজা করার জন্যও পর্যাপ্ত সময় দিন। এটি আপনার বাচ্চার মনোযোগ বৃদ্ধি করার পাশাপাশি কাজের প্রতি আগ্রহ বৃদ্ধি করতেও সহায়তা করবে।

বিভ্রান্তি কমানোর চেষ্টা করুন
বাচ্চাদের মন চঞ্চল। একটুতেই মনোযোগ নষ্ট হয়ে যায়। তাই বাচ্চাদের মনোযোগ বৃদ্ধি করতে কম বিভ্রান্তিকর পরিবেশ তৈরি করা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। টেলিভিশন চালানো, জোরে গান, চেঁচামেচি এবং মোবাইল ফোন, এগুলো বাচ্চাদের ক্ষেত্রে প্রধান বিভ্রান্তি রূপে কাজ করে। পড়াশোনার সময় বাচ্চাদের মোবাইল কিংবা ইন্টারনেট থেকে দূরে রাখুন। এই সকল সতর্কতা অবলম্বন বাচ্চাদের মধ্যে মনোযোগ বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে।

লক্ষ্য পূরণের জন্য নির্দিষ্ট সময়সীমা বেঁধে দিন
আপনার বাচ্চাকে একটি নির্দিষ্ট কাজ সম্পন্ন করতে নির্দিষ্ট সময়সীমা বেঁধে দেওয়ার চেষ্টা করুন। এটি আপনার সন্তানকে নির্দিষ্ট সময়ে কাজ সম্পন্ন করা শিখতে সহায়তা করবে। তবে খেয়াল রাখবেন যে, আপনার নির্ধারিত সময়সীমা যেন খুব কম বা খুব দীর্ঘ না হয়। অন্যথায় বাচ্চাদের কাজের প্রতি আগ্রহ এবং মনোযোগ উভয়ই নষ্ট হয়ে যেতে পারে। ১৫-২০ মিনিটই যথেষ্ট কোনও নির্দিষ্ট কাজ করার ক্ষেত্রে। তাছাড়া বাচ্চাদের কাজ করতে উৎসাহিত করুন, এটি আপনার বাচ্চার কাজের প্রতি আগ্রহ বজায় রাখতে সহায়তা করবে।
শারীরিক কার্যকলাপ করান

বাচ্চারা দিনের বেশিরভাগ সময়ই শক্তিতে পরিপূর্ণ থাকে। একবিন্দু শান্ত হয়ে বসে থাকতে পছন্দ করে না এবং সর্বদা অস্থির থাকে। তাদের মধ্যে থেকে অতিরিক্ত শক্তি বের করতে সহায়তা করার জন্য, বাচ্চাদের খেলাধুলা এবং অন্যান্য শারীরিক কার্যকলাপে ব্যস্ত রাখার চেষ্টা করুন। এটি আপনার বাচ্চাকে আরও ভালোভাবে মনোযোগ দিতে সহায়তা করবে এবং একই সাথে একঘেয়েমি এবং অস্থিরতাকেও নিয়ন্ত্রণে রাখবে।

একই সময়ে একই কাজের পুনরাবৃত্তি করুন
আপনার সন্তানকে প্রতিদিন একই সময়ে পড়াশোনা করতে উৎসাহিত করুন। একই সময় প্রতিদিন হোমওয়ার্ক করলে এটি একটি ভাল অভ্যাস গড়ে তুলতে পারে। যেহেতু এই ব্যাপারটি প্রতিদিন একই সময়ে করা হয়, তাই ওই কাজের প্রতি আলাদা করে মনোযোগ দেওয়ার প্রয়োজন হয় না। প্রতিদিন সেই সময়টি আসলে সে নিজেই পড়তে বসে যাবে। এই প্রক্রিয়াটি বাচ্চাদের মনোযোগ বৃদ্ধি করতেও সহায়তা করে।

মনোযোগ বৃদ্ধিকারী গেম খেলতে আগ্রহ বৃদ্ধি করুন
বর্তমানে বাজারে বিভিন্ন ধরনের গেম পাওয়া যায়, যা খেলতে গভীর মনোযোগের প্রয়োজন। বাচ্চাদের মনোযোগ বৃদ্ধি করতে এই ধরনের গেমগুলো আপনার বাচ্চার দৈনন্দিন জীবনে অন্তর্ভুক্ত করুন। বাচ্চাদের জন্য এই ধরনের খেলাগুলি একাগ্রতা বৃদ্ধি করার পাশাপাশি, দীর্ঘসময় মনোযোগ দিতে সহায়তা করে।
সূত্র: বোল্ডস্কাই

সংবাদ প্রকাশঃ  ১২-১০-২০২১ইং । (সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে দয়া করে ফেসবুকে লাইক বা শেয়ার করুন) (If you think the news is important, please share it on Facebook or the like  See More =আরো বিস্তারিত জানতে ছবিতে/লিংকে ক্লিক করুন=  

Print Friendly, PDF & Email