ব্রাহ্মণপাড়ায় নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধি, বিপাকে ক্রেতারা কাঁচামরিচ প্রতি কেজি ২০০ টাকা

সিটিভি নিউজ।।   আনোয়ারুল ইসলাম সংবাদদাতা জানান ===
কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার বাজার গুলোতে লাগামহীন হয়ে পড়েছে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম। প্রতিটি পন্যের দাম এখন ঊর্ধ্বমুখি। কোনভাবেই কমছে না এসব দ্রব্যের মূল্যে। সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে প্রতিটি পণ্যের দাম। বিশেষ করে সবজির বাজারে দেখা দিয়েছে ভয়ানক আগুন। কাঁচামরিচ প্রতি কেজি ৩০ টাকা থেকে বেড়ে ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, গত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সবজি ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়। এতে দ্রুত বেড়ে যায় সবজির দাম। এদিকে বাজার ঊর্ধ্বগতির জন্য সবজি বিক্রেতারা বৃষ্টিকে দুষলেও ক্রেতারা দুষছেন বিক্রেতাদেরকে। তাদের দাবী বৃষ্টি এখন আর নেই। তার পরেও বাজারের কৃত্রিমভাবে এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে ব্যবসায়ীরা।
ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা সদর বাজারসহ উপজেলার অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের বাজার ঘুরে দেখা গেছে প্রতিটি নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের বাজারের দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি। কোনভাবেই কমছে না প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম। এতে দিশেহারা হয়ে পড়ছেন খেটে খাওয়া মানুষেরা। বাজার করতে গিয়ে চরম বেকায়দায় পড়ছেন দিনে আনে দিন খাওয়া লোকজন।
বাজার ঘুরে দেখা গেছে, কাঁচামরিচ ৩০ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ২০০ টাকায়, পিয়াজ বর্তমানে ২৫ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৮ টাকায়, রসুন ৮০ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১১০ টাকায়, পটল ৩৫ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকায়, বেগুন ২০ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকায়, করলা ৪০ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়, শসা ২৫ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকায়, বরবটি ৪০ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়, গাজর ৫০ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকায়, টামেটো ৫০ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকায়, পটল ৩৫ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়, কারকল ৪০ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়, কচুর লতি ৪০ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়, ধুনদুল ৩০ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকায়, আলু ২৫ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৮ টাকায়, চিচিংগা ৫০ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়, ডেরস ২০ টাকা থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকায়, লেবুর হালি ১২ টাকা থেকে বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকা। একই সাথে বেড়েছে শাকের দাম।
বাজার করতে আসা ব্রাহ্মণপাড়া সদরের শফিকুল ইসলাম জানান, কাঁচাবাজারের কোন তরকারীর দাম কেজি প্রতি ৫০ টাকার নিচে নেই। যার ফলে তার মতো অল্প আয়ের লোকদের খুবই সমস্যা হচ্ছে।
ধন্যদৌল গ্রামের শামসুন্নাহার বেগম বলেন, বর্তমানে সাধারণ মানুষ বাজার করতে গিয়ে অল্প কিছু কিনেই বাড়ি ফিরতে হচ্ছে। এতে করে সংসার চালাতে চরম বেগ পেতে হচ্ছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে সাধারণ মানুষ অতিমাত্রায় ঋণগ্রস্থ হয়ে পড়বে।
সবজি বাজারে গেলে দোকানীরা বলেন, গড়ে ৫০ টাকার নিচে কোন সবজি নাই। উচ্চমূল্যে তারা কাচা তরকারী কিনছেন তাই তাদের বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। অতি বৃষ্টিতে সবজির গাছ পচে নষ্ট হয়ে গেছে। তাই পাইকারী বাজারে দাম বৃদ্ধি হওয়ায় খুচরা বাজারেও বেশী দামে বিক্রি করতে হচ্ছে বলে তারা মনে করেন।

সংবাদ প্রকাশঃ  ০৩২০২০ইং (সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে দয়া করে ফেসবুকে লাইক বা শেয়ার করুন) (If you think the news is important, please share it on Facebook or the like সিটিভি নিউজ@,CTV NEWS24   এখানে ক্লিক করে সিটিভি নিউজের সকল সংবাদ পেতে আমাদের পেইজে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুনসিটিভি নিউজ।। See More =আরো বিস্তারিত জানতে লিংকে ক্লিক করুন=

Print Friendly, PDF & Email