বুড়িচংয়ে কবরস্থান ও মাদ্রাসার ভূমি নিয়ে বিরোধে প্রতিপক্ষ ২৫ জনকে অভিযুক্ত করে থানায় অভিযোগ

সিটিভি নিউজ।।    নিজস্ব প্রতিবেদক  জানান ===
কুমিল্লার বুড়িচংয়ে কবরস্থান ও মাদ্রাসার ভূমির বিরোধকে জড়িয়ে প্রতিপক্ষ এজাহার নামীয় ৯ জন সহ অজ্ঞাত ২০/২৫ জনকে অভিযুক্ত করে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত ১৩ সেপ্টেম্বর রাত অনুমান ১০ ঘটিকার সময় বুড়িচং উপজেলার উত্তর পীরযাত্রাপুর খতিয়ান নং-১ সাবেক দাগ নং-৩৫৭, হাল দাগ ৮৯৯ বিবদমান ২৩ শতক শ্রেণী কবরস্থানের ভূমিতে যেখানে হযরত বেলাল (রাঃ) কেন্দ্রিয় জামে মসজিদ ও ফোরকানিয়া মাদ্রাসা রয়েছে। এ ব্যাপারে গত ১৪ সেপ্টেম্বর পিতা. মৃত. মৌ. মহব্বত আলী পীর সাহেবের ছেলে মো. আতিকুর রহমান (৪২) বাদী হয়ে তারই প্রতিবেশী প্রতিপক্ষ হোসাইন মো. সোহাগ (৩৫) ও শাহআলম প্র. আলম খাঁ (৬৫) গংদের অভিযুক্ত করে বুড়িচং থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে জানা যায়- বিবদমান ২৩ শতক শ্রেণী কবরস্থানের ওই ভূমিতে যেখানে হযরত বেলাল (রাঃ) কেন্দ্রিয় জামে মসজিদ ও ফোরকানিয়া মাদ্রাসা নির্মাণের সময়ে আ: ছোবহান মাস্টার দাতা হয়ে ও শাহআলম প্র. আলম খাঁ স্বাক্ষী হয়ে মাদ্রাসার মসজিদের নামে গত ১৮/৫/‘৯৮ ইং সনে ২৬০৭ নং রেজি. দলিল সম্পন্ন করে। বর্তমানে উক্ত ভূমিতে একটি মসজিদ, একটি হাফেজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখান রয়েছে। বিভিন্ন শালিস বৈঠকে ও উক্ত জায়গা মাদ্রাসা ও মসজিদের নামে থাকবে বলে সাহেব সর্দারগণ সিদ্ধান্ত প্রদান করলেও প্রতিপক্ষরা এখন তা মানতে রাজী হচ্ছে না। অধিকন্তু, প্রতিপক্ষ ঘটনার দিন এতিমখানা ও মাদ্রাসার প্রসাবখানা ও কমপ্লেক্সের পশ্চিম দিকের বেড়া ও দক্ষিণ দিকের ওয়াল ভাঙ্গিয়া পূর্ব দিক দিয়ে জোরপূর্বক ওয়াল নির্মাণের চেষ্টা চালায়। এতে নিষেধ করলে তারা আরো ক্ষুব্ধ হয়ে চত্বরের কবরস্থানসহ সমুদয় স্থাপনা ভেঙ্গে ফেলবে বলে হুমকি ধমকি প্রদর্শন করে। বিষয়টি সুরাহাকল্পে গতকাল দুপুরে বুড়িচং থানার এসআই মোস্তফা মামুন ও এসআই আ: জব্বার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে উভয় পক্ষকে আইনের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে শান্ত থাকার আহবান জানান এবং পূর্বদিকে নতুন ওয়াল আপাতত স্থাপনে বিরত থাকতে বলেন। বিষয়টি সুরাহাকল্পে আইন শৃংখলা বাহিনীসহ এলাকার সুধীজনেরা এগিয়ে এসে যথাযথ ভূমিকা রাখবেন এমনতর আশা করছে সকলে।

সংবাদ প্রকাশঃ  ১-৯-২০২১ইং । (সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে দয়া করে ফেসবুকে লাইক বা শেয়ার করুন) (If you think the news is important, please share it on Facebook or the like  See More =আরো বিস্তারিত জানতে ছবিতে/লিংকে ক্লিক করুন=  

Print Friendly, PDF & Email