না’গঞ্জে গ্রেফতারকৃত প্রতারক গিয়াস ভেন্ডারে বিরুদ্ধে এবার জাপার দলীয় পদ নিয়েও প্রতারণার অভিযোগ

সিটিভি নিউজের ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন

সিটিভি নিউজ, এম আর কামাল, নারায়ণগঞ্জ থেকে জানান : নারায়ণগঞ্জ সিটির বন্দরে এক সময়ে লজিং মাস্টার গিয়াস উদ্দিন ভেন্ডার জনগনের সাথে জালিয়াতি, প্রতারনা করে এখন দলের সাথেও প্রতারনার করার অভিযোগ উঠেছে। মহানগর জাতীয় পার্টির আহবায়ক পরিচয়টিও ভূয়া ও জালিয়াতি। মহানগর জাতীয় পার্টির সদস্য ছিল না সে।
কোন প্রতারক, চিটার, বাটপার ও ভূমিদস্যুসহ বিভিন্ন অপকর্মের সাথে জড়িত কোন ব্যক্তি জাতীয় পার্টির সদস্য হতে পারে না। গিয়াস উদ্দিন ভেন্ডার মহানগর জাতীয় পার্টির আহবায়ক পরিচয় দেওয়ার কারনে সাংগঠনিক ভাবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জানিয়েছে নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক ও বন্দর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সানাউল্লাহ সানু।
গিয়াসউদ্দিন ৯০ দশকে সোনারগাঁও হতে বন্দর খানবাড়িতে মোতালেব খানের বাড়িতে লজিং মাস্টার হিসেবে থাকতে শুরু করে। ১৯৯৩ সালে মোতালেব খানের মেয়েকে বিয়ে করে ঘর জামাই বনে যায়। খান বাড়িতে বিয়ের পর তাকে আর পিছু ফিরে তাকাতে হয়নি।
প্রায় ২ যুগে গিয়াসউদ্দিন ভেন্ডার হতে চৌধুরীসহ জালিয়াতি করে শত শত কোটি টাকার মালিক হন। শুধু বন্দরের আমিনে ৩টি, র‌্যাালীতে ৩ টি, একরামপুর ইস্পাহানি এলাকায় ৮/১০ টি বিলাশ বহুল আট্রালিকা রয়েছে। তার নামে-বেনামে তার স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তির পরিমান বিশাল। প্রতারক, জালিয়াতির সর্দার গিয়াস উদ্দিন ভেন্ডারের বিরুদ্ধে দূর্নীতি দমন কমিশনের জররুর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন সচেতন মহল।
এক বিবৃতিতে জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক ও বন্দর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সানাউল্লাহ সানু বলেন, আমি গত ৫ মে শারিরিক চিকিৎসার জন্য ভারত ছিলাম। ১৩ মে দেশে এসে শুনি জালিয়াতি ও প্রতারনা মামলায় গিয়াস উদ্দিন ভেন্ডার গ্রেপ্তার হয়েছে। সেখানে একজন প্রতারক, জালিয়াত গিয়াস উদ্দিন ভেন্ডার মহানগর জাতীয় পার্টির আহবায়ক পরিচয় দিয়েছে।
গিয়াস উদ্দিনের মত সমাজে চিহিৃত বাটপার, চিটার, ভূমিদস্যু। সে জাতীয় পার্টির আহবায়ক মানে। ওর মত লোক মহানগর জাতীয় পার্টির সদস্য হওয়ার যোগ্যতা রাখে না। তারপর আবার আহবায়ক। চেয়ারম্যান সানু চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলেন, গিয়াসউদ্দিন ভেন্ডার যদি মহানগর জাতীয় পার্টির আহবায়কের কোন কাগজ দেখাতে পারে তাহলে রাজনীতি ছেড়ে দিব।
গিয়াস উদ্দিন ভেন্ডার জাতীয় পার্টির পূর্বেও ছিল না, এখনও নেই। জাতীয় পার্টিতে কি নেতার অভাব দেখা দিয়েছে যে বাটপার গিয়াস উদ্দিন ভেন্ডারকে দলে নিতে হবে। কোন ব্যক্তি যদি অপকর্ম করে তার ফল তাকেই ভোগ করতে হবে। সেজন্য সংগঠন তার অপকর্মের কালিমা বহন করবে না।
আর গিয়াস উদ্দিন ভেন্ডার জেলা বা মহানগর জাতীয় পার্টি কিছু না। বিভিন্ন জায়গায় গিয়াস উদ্দিন ভেন্ডার মহানগর জাতীয় পার্টি আহবায়ক পরিচয় দিয়েছে সেজন্য অচিরেই সাংগঠনিক ভাবে আইনগত কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানান।
উল্লেখ্য যে, নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশ বন্দর উপজেলার বন্দর খেয়াঘাট সংলগ্ন গিয়াসউদ্দিন কমপ্লেক্স থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। বুধবার (১১ মে) দুপুরে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশের ওসি শাহ্ জামান গ্রেপ্তারের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘তার বিরুদ্ধে আজিজুর রহমান মিঠু নামে এক ব্যক্তির মালিকানাধিন জমি স্বাক্ষর নকল করে এবং জাল দলিল সৃজনের মাধ্যমে অন্যত্র বিক্রির অভিযোগ রয়েছে।
ভুক্তভোগি নারায়ণগঞ্জের একটি আদালতে এ সংক্রান্ত মামলার আবেদন করলে ৮ মে আদালত অভিযোগের তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশপ্রদান করে। গতকাল সোমবার দুপুরে আদালতে পুলিশের ৩দিন রিমান্ডের শুনানিকালে আদালত ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে।

সংবাদ প্রকাশঃ  ১-০-২০২২ইং সিটিভি নিউজ এর  (সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে দয়া করে ফেসবুকে লাইক বা শেয়ার করুন) (If you think the news is important, please share it on Facebook or the like  See More =আরো বিস্তারিত জানতে ছবিতে/লিংকে ক্লিক করুন=  

Print Friendly, PDF & Email