নওগাঁয় গৃহবধূর গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে হত্যা, আসামীরা পলাতক

সিটিভি নিউজ।।  মোঃ খালেদ বিন ফিরোজ  নওগাঁ প্রতিনিধি জানান ====  নওগাঁয় জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে রিতা বেগম (৩৫) নামে এক গৃহবধূর শরীরে পেট্রোল ঢেলে আগুন দেয়ার অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে। শুক্রবার (৩০এপ্রিল) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। নিহত রিতা বেগম নওগাঁ সদর উপজেলার শৈলগাছী ইউনিয়নের চক-চাপাই গ্রামের মোসলেম উদ্দিনের স্ত্রী ছিলেন। এ ঘটনায় নিহতের মা রোকেয়া বেগম বাদী হয়ে চারজনকে আসামি করে মামলা করেছেন। এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে আগুন দেয়ার ঘটনাটি ঘটে।

নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, বাড়ির দুই শতক জমি নিয়ে নিহত নারীর স্বামী মোসলেম উদ্দিনের ভাই ও ভাতিজাদের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। গত ২৪ এপ্রিল রাত ১০টার দিকে প্রতিপক্ষরা রিতাকে এ নিয়ে হুমকি দিয়ে যায়। তখন তার স্বামী বাড়িতে ছিলেন না। বাড়ি ফিরে তিনি স্ত্রীর কাছে বিষয়টি শোনেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ২৯ এপ্রিল মোসলেম উদ্দিনের ভাতিজা আলামিন প্রামানিক (২৩), আলামিনের মা সাহিদা বেগম (৪৫), চাচাতো ভাই সানোয়ার প্রামানিক (৩২) ও জলিল প্রামানিকের (৩৫) বিরুদ্ধে রিতা বেগম থানায় অভিযোগ করেন।
ওইদিনই দিবাগত রাত ১টার দিকে রিতা ঘরের বাইরে থাকা বাথরুম থেকে ফেরার পথে ৪-৫ জন তার গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেয়। এ সময় তার চিৎকারে মেয়ে আরিফা ইয়াসমিন ও স্বামীসহ প্রতিবেশীরা এগিয়ে এলে অভিযুক্তরা পালিয়ে যায়। জীবন বাঁচাতে রিতা পুকুরে লাফিয়ে পড়েন। পরে তাকে উদ্ধার করে নওগাঁ সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে রাতেই উন্নত চিৎকিৎসার জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।
শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে তিনি মারা যান। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্তরা পালিয়ে আছে।
নিহতের স্বামী মোসলেম উদ্দিন বলেন, বাড়ির দুই শতক জমি নিয়ে ভাই-ভাতিজাদের সঙ্গে বিরোধ চলছিল। গত কয়েকদিন আগেই ওই জমি ছেড়ে দিতে তারা আমার স্ত্রীকে হত্যার হুমকি দিয়ে যায়। বিষয়টি নিয়ে থানায় অভিযোগ করা হয়। কিন্তু ক্ষিপ্ত হয়ে তারা আমার স্ত্রীর গায়ে পেট্রোল দিয়ে আগুন লাগিয়ে দেয়।
ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের আইনের আওতায় নিয়ে আসার দাবী জানান তিনি।
নিহতের মেয়ে আরিফা ইয়াসমিন বলেন, হাসপাতালে ভর্তির পর মা একটু একটু কথা বলতে পারতেন। তিনি মারা যাবার আগে ওই চারজনের নাম বলে গেছেন। তারাই আমার মাকে পরিকল্পিতভাবে তারা হত্যা করেছে।
এ বিষয়ে অভিযুক্তদের বাড়িতে গেলে তাদের কাউকে পাওয়া যায়নি। তাদের বাড়িতে তালা ঝুলছিল। সে কারণে তাদের বক্তব্যও পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে নওগাঁর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম বলেন, নিহত রিতা বেগম থানায় অভিযোগ করার পরই রাতে গায়ে আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। পরদিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। মরদেহ নিয়ে আসা হলে দাফনের পরামর্শ দেওয়া হয়। সুরতহাল প্রতিবেদন বগুড়ায় করা হয়েছে। বিষয়টি জানার পর শুক্রবার বিকেলে ওই এলাকায় পুলিশ পাঠানো হয়েছে। কিন্তু অভিযুক্তদের কাউকেই বাড়িতে পাওয়া যায়নি। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে।সংবাদ প্রকাশঃ  ০২২০২১ইং (সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে দয়া করে ফেসবুকে লাইক বা শেয়ার করুন) (If you think the news is important, please share it on Facebook or the like সিটিভি নিউজ@,CTVNEWS24   এখানে ক্লিক করে সিটিভি নিউজের সকল সংবাদ পেতে আমাদের পেইজে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুনসিটিভি নিউজ।। See More =আরো বিস্তারিত জানতে লিংকে ক্লিক করুন=   

Print Friendly, PDF & Email