জামালপুরে দীর্ঘ ২২বছর পর বাহাদুরাবাদ ও বালাসীরুটে লঞ্চ সার্ভিস শুরু

সিটিভি নিউজের ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন

সিটিভি নিউজ।।       কামরুজ্জামান কানু  সংবাদদাতা জানান ====জামালপর জেলার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলায় দীর্ঘ ২২বছর পর পরীক্ষা মূলক ভাবে বাহাদুরাবাদ ও বালাসী রুটে লঞ্চ সার্ভিসের শুভ উদ্বোধন করেছেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধূরী।
৯ এপ্রিল দুপুরে উদ্বোধন সময় নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধূরী এমপি বলেছেন, ভারতের সঙ্গে অভিন্ন নদীর প্রবাহ নিয়ে আমাদের আলোচনা চলছে, এর মধ্যে যমুনা ও তিস্তা নিয়ে কথা চলছে। আলোচনা ফলপ্রসু হলে নদীর নাব্যতা ফিরে আসবে। নাব্যতা ফিরে এলে নৌচলাচলে কোন বাঁধা থাকবেনা বলে উল্লেখ করেন।
জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে বাহাদুরাবাদ লঞ্চ টার্মিনাল ও বাহাদুরাবাদ ও বালাসী রুটে পরীক্ষা মূলক লঞ্চ সার্ভিসের উদ্বোধন কালে তিনিআরও বলেন, ইতো মধ্যে সাত হাজার কিলোমিটার নৌ পথ তৈরি করে ফেলেছি, আমাদের লক্ষ্য দশ হাজার কিলোমিটার নৌপথ। সরকার দেড়শ কোটি টাকা ব্যয়ে যে টার্মিনাল তৈরি করেছে তা ধরে রাখার জন্যই নির্মাণ করা হয়েছে।
এ সময় বিআইডব্লিওটি আইয়ের চেয়ারম্যান কমোডোর গোলাম সাদেক, দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুন্নাহার শেফা, উপজেলা চেয়ারম্যান সোলায়মান হোসেন সহ অনেকেই এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, ২০০০ সালে বাহাদুরাবাদ ও বালাসী রুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। দীর্ঘ ২২বছর পর পরীক্ষামূলক ভাবে নৌরুটটি আবার চালুর কাজ শুরু হয়।
জানাযায়, প্রায় ১শ ৪৫ কোটি টাকা ব্যায়ে বালাসী ও বাহাদুরাবাদ উভয় পারের টার্মিনাল নির্মানের কাজ ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। উভয় পাশের টার্মিনাল দুটিতে অফিস ভবন, পাইলট হাউজ, পুলিশ ও আনসার ব্যারাক, ফায়ার সার্ভিস, টুলসভবন, ড্রাইভার রেষ্টহাউজ, যাত্রীছাউনি, টয়লেট হাউজসহ ১১টি অবকাঠামো নির্মাণ করা হয়েছে।
এছাড়া নৌরুটের নাব্যতা স্বাভাবিক রাখার লক্ষ্যে ২৪ কোটি টাকা ব্যায়ে ১৪ কিলোমিটার এলাকায় ড্রেজিং এরকাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। ফলে এ রুটটি লঞ্চ চলাচলের জন্য সুযোগ সুবিধার সৃষ্টি হয়েছে। লঞ্চ সাভির্স চালু হওয়ায় দেশের উত্তরাঞ্চলের সাথে রাজধানীসহ পূর্বাঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজসহ নৌ পথে মালামাল পরিবহনের সুযোগ সৃষ্টি হল।
এদিকে নৌ পথ চালু হওয়ায় উভয় পারের মানুষের মধ্যে খুশীর আমেজ ছড়িয়ে পড়ছে।

সংবাদ প্রকাশঃ  ১০-০-২০২২ইং সিটিভি নিউজ এর  (সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে দয়া করে ফেসবুকে লাইক বা শেয়ার করুন) (If you think the news is important, please share it on Facebook or the like  See More =আরো বিস্তারিত জানতে ছবিতে/লিংকে ক্লিক করুন=  

Print Friendly, PDF & Email