চাকুরীর আশায় বসে না থেকে কৃষিতে সফল হয়েছেন তরুণ কৃষক  সাজ্জাদ হাসান

সিটিভি নিউজের ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন

সিটিভি নিউজ।। পড়াশোনার পাশাপাশি চাকরির পিছনে ছুটবে, চাকরি করবে! চাকরি না করলে লেখাপড়া বৃথা এমন ধারণাকে পাল্টে দিয়েছেন একজন শিক্ষিত তরুণ উদ্যোক্তা তরুণ কৃষক  সাজ্জাদ হাসান (২১)।   সাজ্জাদ হাসান ঢাকার খিলগাঁও মডেল কলেজের ব্যবসায় শিক্ষা শাখা থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেন। চাকরির পিছনে না ঘুরে নিজেই গড়ে তুলেছেন মুহাম্মাদি আমানত নামকরণে-মিশ্র ফল ও সবজির প্রজেক্ট।   ঢাকার মুগদাপাড়ার একজন শিক্ষিত যুবক কৃষক সাজ্জাদ হাসান।   সাজ্জাদ ওই এলাকার মোঃ কামরুল হাসানের ছেলে। সাজ্জাদ হাসান উচ্চ মাধ্যমিক শেষ করে ভাবতে থাকেন ঘর বন্দী সময়টা কিভাবে কাজে লাগানো যায়।   তখন তার মাথায় এলো এভাবে বসে থেকে কোন লাভ নেই। কৃষি কাজের প্রতি তিনি ছোট থেকেই অনেক আগ্রহী ছিলেন। তার পিতা এক সময়ের কৃষক ছিলেন। সময়টা নষ্ট না করে তার বাবা বাড়ির পাশে যেই জমিতে চাষ করতেন তিনিও সেই জমিতে চাষাবাদ শুরু করেন। আধুনিক পদ্ধতিতে চাষ করায় খুব ভাল ফলন হয়। এতে তাঁর উৎসাহ বেড়ে যায়। অন্যের জমি ভাড়া নিয়ে চাষাবাদ বাড়াতে থাকেন। সাজ্জাদ হাসানের ফল গাছের মধ্যে রয়েছে আম গাছ, জাম গাছ, পেয়ারা গাছ, পেপে গাছ, লিচু গাছ, কলা গাছ এবং কৃষি ক্ষেতের মধ্যে রয়েছে লাউ গাছ, মরিচ গাছ, টমেটো গাছ, বেগুন গাছ, পুঁই শাক, লাল শাক, পালন শাক। নিজের অর্জিত শিক্ষাকে কাজে লাগিয়ে কৃষি প্রজেক্ট থেকে তিনি ব্যাপক সফলতা পাচ্ছেন। আশপাশের কয়েক এলাকার শিক্ষিত বেকার যুবকরা আসছেন তার এ প্রজেক্ট পরিদর্শনে। তারাও চাকরির পেছনে না ছুটে এ ধরনের প্রজেক্ট করার আগ্রহ প্রকাশ করছেন। তরুণ কৃষক  সাজ্জাদ জানান, গত বছর আমার ফসলের আবাদে সফল হওয়ার পরে আমি নতুন একটা উদ্যোগ নেই। সে উদ্যোগে তিনি একটি কোম্পানি খোলার চিন্তা করেন যার নামকরণ করে হবে মুহাম্মাদি আমানত। সারা বাংলাদেশের কৃষকদের নিয়ে কাজ করার জন্য মুহাম্মাদি আমানত নামের এই স্টাটাপ খুলেছি। বিভিন্ন মিশ্র ফল ও সবজি চাষাবাদ করেছি। উচ্চমূল্যের বিভিন্ন ফল ও সবজি চাষ করেছেন। তার এই চাষাবাদ দেখে তরুণ সমাজ চাষাবাদে আগ্রহী ও সম্পৃক্ত হচ্ছে। এভাবে শিক্ষিত তরুণ সমাজ কৃষি কাজে সম্পৃক্ত হলে অ ভবিষ্যতে বাংলাদেশ কৃষিতে আরও সমৃদ্ধ হবে। সাজ্জাদের মতো আরও কোন তরুণ আধুনিক চাষাবাদে আগ্রহী হলে আমরা তাদের পাশে থাকব।

সংবাদ প্রকাশঃ  ২-০-২০২২ইং সিটিভি নিউজ এর  (সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে দয়া করে ফেসবুকে লাইক বা শেয়ার করুন) (If you think the news is important, please share it on Facebook or the like  See More =আরো বিস্তারিত জানতে ছবিতে ক্লিক করুন=  

Print Friendly, PDF & Email