আড়াইহাজারে প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীদের কোপে পল্লী চিকিৎসক গুরুতর আহত

সিটিভি নিউজ, এম আর কামাল, নারায়ণগঞ্জ থেকে জানান : নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে সরকারি দলের এক পক্ষের হামলায় অপর পক্ষের ডা. আবদুল আউয়াল নামে এক গ্রাম্য চিকিৎসক গুরুতর আহত হয়েছেন। বুধবার (১ জুলাই) সকালে উপজেলার খাগকান্দা ইউনিয়নের জাঙ্গালিয়া বাজারে হামলার ওই ঘটনা ঘটে। হামলার পর প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীদের ভয়ে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব হয়নি। পরে তাকে নারায়ণগঞ্জ দেড়শ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে এনে চিকিৎসা দেওয়া হয়। সন্ত্রাসীদের হামলায় আবদুল আউয়ালের ডান হাতের বৃদ্ধাঙ্গুল প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। এছাড়া মাথায়ও ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। হামলার সময় সন্ত্রীরা তার কাছ থেকে ফার্মেসীর জন্য ওষুধ কেনার নগদ ৩৫ হাজার টাকা ও ১৫ হাজার টাকা মূল্যের একটি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে যায়।
সন্ত্রাসী হামলায় আহত ডা. আবদুল আউয়ালের মামা ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ইকবাল পারভেজ বলেন, আড়াইহাজারে আওয়ামী লীগের দু’টি পক্ষ রয়েছে। আবদুল আউয়াল আমার অনুসারি। প্রতিপক্ষ তাকে তাদের পক্ষে ভেড়ানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। এতে তার উপর ক্ষিপ্ত ছিল তারা। আউয়ালের উপজেলার জাঙ্গালীয়া বাজারে একটি ফার্মেসী রয়েছে। এলাকায় সে একজন পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ হিসেবে পরিচিত। দলে কোন পদ না থাকলেও সে আওয়ামী লীগের নিবেদিত প্রাণ একজন কর্মী। আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সে খাগকান্দা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী। সে কারণেই প্রতিপক্ষের লোকজন তার উপর ক্ষিপ্ত ছিল।
আহত আবদুল আউয়াল নারায়ণগঞ্জ দেড়শ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বলেন, বুধবার সকালে তিনি জাঙ্গালীয়া বাজারে নিজের ফার্মেসী খোলার সময় একই এলাকার স্থানীয় এমপি বাবুর কর্মী শহীদুল্লাহ, শরীফ, মোশারফসহ আরও ৬/৭ জন ধারালো অস্ত্র নিয়ে আমার উপর হামলা করে। তাদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তার ডান হাতের বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে এবং মাথায় বেশ কয়েকটি কোপ লাগে। আমার চিৎকারে বাজারের লোকজন চলে এলে সন্ত্রাসীরা এ নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি করলে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে যায়। তাদের হুমকির কারণে আমার স্বজনরা আমাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা করানোর সাহস করেনি।
আড়াইহাজার থানার ওসি নজরুল ইসলাম বলেন, ঘটনার খবর পাওয়ার পর থেকেই পুলিশ অপরাধীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালাচ্ছে। ওই ঘটনায় গ্রাম্য চিকিৎসক ডা. আবদুল আউয়াল নিজেই বাদি হয়ে ৩ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত পরিচয় আরও ৬/৭ জনের নামে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

সংবাদ প্রকাশঃ  ০১২০২০ইং (সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে দয়া করে ফেসবুকে লাইক বা শেয়ার করুন) (If you think the news is important, please share it on Facebook or the like সিটিভি নিউজ@,CTV NEWS24   এখানে ক্লিক করে সিটিভি নিউজের সকল সংবাদ পেতে আমাদের পেইজে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুনসিটিভি নিউজ।। See More =আরো বিস্তারিত জানতে লিংকে ক্লিক করুন=

Print Friendly, PDF & Email