পেকুয়ার ৭ টি ইউপি নির্বাচন বাহাদুর শাহ আবারো নির্বাচনের মাঠে থাকছেন

সিটিভি নিউজের ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন

সিটিভি নিউজ ।।      শান্তনু হাসান খান (বিশেষ প্রতিনিধি)  জানান =====
এখন চলছে নির্বাচনী আমেজ। সম্ভাব্য প্রার্থীরা নিরবে জনসংযোগ করছেন। এদিকে দেশের দক্ষিণাঞ্চল চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের বেশ কয়েকটি উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীদের আনাগোনা শুরু হয়েছে। তবে এবার কেন্দ্র থেকে কড়া নির্দেশনা আছে- সম্ভাব্য ৩জন দলীয় প্রার্থীর নাম কেন্দ্রীয় সিলেকশন কমিটির কাছে প্রেরণ করতে হবে। কোন কারণে ওই সকল প্রার্থীদের বিষয়ে অভিযোগ কিংবা পাল্টা অভিযোগ পাওয়া গেলে স্থানীয় নেতৃবৃন্দকে জবাবদিহিতার আওতায় আনা হবে। ইতিমধ্যে অনেকগুলো প্রার্থীদের বিষয়ে কেন্দ্রে আলোচনা হয়েছে। অনেকে নমিনিয়েশন বাণিজ্যের কথা জানান দিয়েছেন। তবে আর যাইহোক সকল প্রার্থীরা আওয়ামীলীগের গঠনতন্ত্রে বিশ্বাসী এবং তারা সবাই বঙ্গবন্ধুর আদর্শে লালিত।
সে আলোকে এবার কক্সবাজার জেলার পেকুয়া উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। চলতি দায়িত্বে থাকা ৭ ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যানগণ ছাড়াও দলীয়ভাবে অনেকে প্রার্থীতা চাইবেন। তবে এখানে সাতটির মধ্যে ৩ জন চেয়ারম্যান বিএনপি’র সমর্থিত। তবে গা বাঁচাতে একজন চেয়ারম্যান-মগনামার ওয়াসিম আওয়ামীলীগে যোগ দিয়েছেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ নেই। তবে ভালো অবস্থানে আছেন দুইবারের নন্দিত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ বাহাদুর শাহ। পেকুয়া সদরের চেয়ারম্যান দীর্ঘদিন বিএনপি’র রাজনীতির সাথে সম্পর্কিত হলেও ৩১ হাজার ভোটারের অনেকেই পছন্দের তালিকা রেখেছেন তাকে। এ প্রসঙ্গে বাহাদুর শাহ বলেন, দল থেকে নির্বাচনের কোন ঘোষণা নেই। তারপরেও জনগণের প্রচন্ড চাপে এবার ৩য় দফায় স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মাঠে থাকবো ইনশাল্লাহ।
এ প্রসঙ্গে বাহাদুর শাহ বলেন, আমার অতীতের পলিটিকেল ক্যারিয়ার ও এলাকার মানুষের গ্রহণযোগ্যতার বিষয়টি জনগণ ভালো চোখে দেখবেন। আর সেই বিশ^াস উপর ভর করে আমি নির্বাচনের মাঠকে গুছিয়ে রেখেছি। সুষ্ঠু এবং অবাধ নির্বাচনে প্রতিটি ভোটার তার ভোট প্রয়োগ করতে পারলে আমি পুনরায় উঠে আসবো।
চেয়ারম্যান বাহাদুর শাহ পেকুয়ার ৫নং ওয়ার্ডের ভোটার। বেড়ে উঠেছেন এ জনপদে। মাটি আর মানুষের সম্পৃক্ত। ছাত্র অবস্থাতেই শহীদ রাস্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আদর্শে গড়া জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। পরবর্তী সময়ে বিএনপি’র রাজনীতিতে সক্রিয় হয়ে পড়েন। দীর্ঘ ২৫ বছর পেকুয়ার বিএনপি’র সভাপতি। সারা জীবন স্বচ্ছতার মধ্যে রাজনীতি করেছেন। ২০১১ সালে প্রথম চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। পরবর্তী সময় আওয়ামীলীগের নৌকার জোয়ারে পুনরায় নির্বাচিত হন। স্থানীয় উন্নয়নে কোন প্রকার প্রতিবাদ কিংবা অনিয়মের অভিযোগ উঠেনি। সরকারের সকল কর্মসূচি রুটিন ওয়ার্কের মধ্যদিয়ে শেষ করেছেন।
৫৮ বছরের মোহাম্মদ বাহাদুর শাহ বিগত ১০ বছরে যত কাজ করেছেন তার সবটাই ছিলো সরকারী রুটিন ওয়ার্ক এবং তা স্বচ্ছতার মধ্যে সমাপ্ত করেছেন। কোন অনিয়ম করা হয়নি। যেহেতু প্রতিটি উন্নয়ন কাজে সরকারি একজন ট্যাগ অফিসার নিয়োগ করা থাকেন। এখানে অনিয়ম করার কোন সুযোগ থাকে না।
এদিকে সারা দেশে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের সকল প্রস্তুতি ইতি মধ্যেই নির্বাচন কমিশন গ্রহণ করেছেন। দেশে বর্তমানে ৪ হাজার ৫৭১ টি ইউনিয়ন পরিষদ বিদ্যমান। এর মাঝে বরিশাল, ভোলা, শরীয়তপুর, মাদারীপুর ও লক্ষীপুরের ২০৬টি ইউনিয়ন এবং স্থগিত ১০৭টি ইউপি নির্বাচন সমাপ্ত করেছে সিইসি। নভেম্বরের ১৮ তারিখে দ্বিতীয় ধাপে নির্বাচন হবে ৮৪৮টি। এর মাঝে দক্ষিণ চট্টগ্রামে ৬টি উপজেলার ১৯১টি ইউপি বিদ্যমান। এখানে ধারাবাহিকভাবে তৃতীয় ধাপে নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। পাশাপাশি কক্সবাজার জেলার চকোরিয়া, পেকুয়া, রামু, উখিয়া- এই ৪টি উপজেলা নির্বাচনের সম্ভাব্য তফসিল নভেম্বরের শেষ সপ্তাহে। আর নির্বাচন গড়াবে ডিসেম্বরে। অর্থাৎ ৪র্থ ধাপে। এর মধ্যে সম্ভাব্য প্রার্থীরা একটু নড়েচরে বসবেন। আর অনেকেই নিরবে জনসংযোগ শুরুও করেছেন। ২০১৬ সালে ২২ শে মার্চ শুরু হয়ে ৪ জুন পর্যন্ত কয়েক ধাপে নির্বাচন সমাপ্ত করে সরকার। স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন অনুসারে মেয়াদ শেষ হওয়ার ১৮০ দিন পূর্বে পরবর্তী পরিষদের গ্রহণযোগ্যতা থাকে। আর সে আলোকে কক্সবাজার জেলার চকোরিয়ার ১৮টি ইউনিয়নের নির্বাচনের জন্য চলতি দায়িত্বে থাকা চেয়ারম্যানসহ অন্যান্য প্রার্থীরাও নিরবে কাজ করছেন।
পরিশেষে বাহাদুর শাহ বলেন, গোটা কক্সবাজার জেলাটাই মাদকের ডিপো হিসেবে সারাদেশে পরিচিতি লাভ করেছে। সে থেকে আমার পেকুয়া কোন অংশেই পিছিয়ে নেই। তবে মাদকের ভয়াবহতা থেকে আমাদের যুব সমাজকে রক্ষা করতে চাই আগামীতে।

সংবাদ প্রকাশঃ  ২০-১০-২০২১ইং । (সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে দয়া করে ফেসবুকে লাইক বা শেয়ার করুন) (If you think the news is important, please share it on Facebook or the like  See More =আরো বিস্তারিত জানতে ছবিতে/লিংকে ক্লিক করুন=  

Print Friendly, PDF & Email