ঝালকাঠির সুগন্ধা থেকে আরও এক পোড়া লাশ উদ্ধার, সুগন্ধার পাড়ে স্বজনদের ভিড়

সিটিভি নিউজের ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন

সিটিভি নিউজ।।     মো:নজরুল ইসলাম,ঝালকাঠি ::সংবাদদাতা জানান ==    সুগন্ধা নদীতে লঞ্চের আগুনে চারদিন পর উদ্ধার হলো আরও একজনের মরদেহ। এই নিয়ে লাশের সংখ্যা হলো ৪২। এমভি অভিযান-১০ লঞ্চে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় টানা চতুর্থ দিনের মতো উদ্ধার কার্য পরিচালনা করছে ফায়ার সার্ভিস, নৌ পুলিশ ও কোস্টগার্ড। সোমবার সকালে চতুর্থ দিনের উদ্ধার অভিযানের শুরুতেই সুগন্ধা নদী থেকে আরেক ব্যক্তির মরদেহ পায় উদ্ধারকারী দল। দুর্ঘটনার চারদিন পর এসেও এখনও নিখোঁজ স্বজনদের খুঁজে পাবার উদ্দেশে সুগন্ধার তীরে প্রতীক্ষার প্রহর গুনছে অনেকে।
ঝালকাঠির জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আগেই জানানো হয়েছিলো, উদ্ধার অভিযান চলবে কয়েকদিন ব্যাপী। তারই ফলশ্রুতিতে আজ চতুর্থ দিনের উদ্ধার অভযানের সময় নতুন করে এই লাশ খুঁজে পায় উদ্ধারকারীরা। আজও জেলা প্রসাশক জানিয়েছে, সামনেও আরও কয়েকদিন চলবে এই উদ্ধার অভিযান। ঝালকাঠির সুগন্ধা- বিষখালী নদীতে সকালে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ ভেসে উঠে।সোমবার সকালে সদরের ধানসিঁড়ি ইউনিয়নের চর সাচিলাপুর এলাকা থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনাস্থলটি রাজাপুরের সীমান্তবর্তী হওয়ায় লাশটি
রাজাপুর থানা–পুলিশ উদ্ধার করেছে। তবে ওই ব্যক্তির পরিচয় পুলিশ নিশ্চিত করতে পারেনি। ওই ব্যক্তির পরনে কালো গেঞ্জি ও লুঙ্গি ছিল। তাঁর বয়স আনুমানিক ৪০ বছর। পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে, উদ্ধার হওয়া লাশটি দুর্ঘটনাকবলিত অভিযান-১০ লঞ্চের যাত্রীর হতে পারে। এ বিষয় রাজাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পুলক চন্দ্র রায় বলেন, আজ সকালে স্থানীয় লোকজন নদীতে লাশ ভেসে থাকতে দেখে পুলিশকে খবর দেয়। পরে
পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে। অজ্ঞাত ওই ব্যক্তির লাশ ফুলে গেছে। তাঁর পরনের লুঙ্গি হাঁটুর ওপর পর্যন্ত গুটিয়ে রাখা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, উদ্ধার হওয়ালাশ দুর্ঘটনাকবলিত লঞ্চের যাত্রীর হতে পারে। লাশ উদ্ধারের বিষয়টি ঝালকাঠি থানাকে জানানো হয়েছে। এদিকে সকাল থেকেই নিখোঁজ ব্যক্তিদের সন্ধানে তাঁদের স্বজনেরা ঝালকাঠির লঞ্চঘাট এলাকায় সুগন্ধার পাড়ে ভিড় করছেন। আবার বিষখালী নদীতে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার হওয়ার খবরে অনেকেই সেখানে ছুটে যাচ্ছেন। বরগুনার মনির হোসেনের বোন, ভাগনিসহ তাঁর পরিবারের চারজন নিখোঁজ।সকাল থেকেই তিনি সুগন্ধার পাড়ে অপেক্ষা করছেন। তিনি বলেন, ‘আমরা এখন ক্লান্ত হয়ে গেছি। জানি না আমার পরিবারের লোকজনের ভাগ্যে কী ঘটেছে! বরগুনা জেলা প্রশাসন থেকে ঝালকাঠিতে পাঠানো তালিকা অনুযায়ী, লঞ্চ দুর্ঘটনায় এখনো ৪১ জন নিখোঁজ। তবে ঝালকাঠি রেড ক্রিসেন্টের  তালিকা অনুযায়ী ৫১ জন নিখোঁজ।
শনাক্ত করতে না পারা ৩২ জনের লাশ দাফন করা হয়েছে সরকারী উদ্যোগে। সেইসবলাশের পরিচয় শনাক্তের জন্য ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করে রাখা আছে। নিহতের  স্বজনদের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহের কার্যক্রম সোমবার বিকাল ৩ টা থেকে স্থানীয় মিনিপার্কে পরিচালনা করা শুরু করে সিআইডি। মর্মান্তিক এই অগ্নিকান্ডের ঘটনায় নিহত বা নিখোঁজ ব্যতিরেকেও শতাধিক মানুষ আহত হয়েছেন। ঢাকা, বরিশাল ও ঝালকাঠির বিভিন্ন হাসপাতালে তাদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

সংবাদ প্রকাশঃ  ২৭-১২-২০২১ইং । (সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে দয়া করে ফেসবুকে লাইক বা শেয়ার করুন) (If you think the news is important, please share it on Facebook or the like  See More =আরো বিস্তারিত জানতে ছবিতে/লিংকে ক্লিক করুন=  

Print Friendly, PDF & Email