আড়াইহাজারে গ্রামবাসী ডাকাত সর্দার মুকুলের হাত পা ভেঙ্গে রগ কেটে দিয়েছে

সিটিভি নিউজের ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন

সিটিভি নিউজ, এম আর কামাল, নারায়ণগঞ্জ থেকে জানান : নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলায় মুকুল হোসেন (৪৫) নামের শীর্ষ সন্ত্রাসী ও ডাকাত সর্দারের কর্মকান্ডে অতিষ্ঠ হয়ে তার হাত-পাঁ ভেঙ্গে রগ কেটে দিয়েছে গ্রামবাসী। আজ সোমবার (২০ জুন) বেলা ২টার দিকে উপজেলার মাহমুদপুর ইউনিয়নের জোগারদিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রেরণ করে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে থানার ওসি জানিয়েছেন। আহত ডাকাত সর্দার মুকুল ওই এলাকার সাবেক ইউপি সদস্য াবিলার ছেলে।
এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, মুকুল দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় চাঁদাবাজী, চুরি, ছিনতাই, ডাকাতি, মাদকসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ড চালিয়ে আসছে। ডাকাতি করতে গিয়ে সে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ধর্ষণ করতো। সম্প্রতি এক বাড়িতে ডাকাতি করতে গিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগ রয়েছে। বিভিন্ন রূপ ধারণ করে মকুল পুলিশ ও এলাকাবাসীর চোখ ফাঁকি দিয়ে মাঝে মধ্যে নিজ বাড়ি আসতো। সোমবার দুপুরে সে সবার অগোচরে বাড়ি থেকে চলে যাওয়ার সময় তাকে জোগারদিয়া এলাকায় তাকে চিনে ফেলে। তখন তার নাম জিজ্ঞাসা করতেই সে দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। পরে স্থানীয়রা ধাওয়া করে তাকে আটক করে গণধোলাই দেয়। পরে তার হাত পা ভেঙ্গে হাতে পায়ের রগ কেটে দেয়। মকুলের একের পর এক অপরাধ কর্মকান্ডে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ ছিল। তার ভয়ে এলাকার অনেক লোক আতঙ্কে রাতে বাড়ির বাইরে থাকতো।
আড়াইহাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আজিজুল হক হাওলাদার জানান, সোমবার অজ্ঞাত ব্যক্তিরা ডাকাত সর্দর মুকুলকে মারধর করে হাত পাঁ ভেঙ্গে রগ কেটে জোগারদিয়া সড়কের মাঠে ফেলে রেখে যায়। সে ডাকাতির করার সময় ওই পরিবারের নারীদের ধর্ষণের করার অভিযোগ রয়েছে। তার বিরুদ্ধে আড়াইহাজার থানাসহ বিভিন্ন থানায় চুরি, ডাকাতি, ধর্ষণ, চাঁদাবাজি, মাদক, ছিনতাই, মারামারিসহ ১২ টি মামলা রয়েছে। ৭টি মামলায় সে ওয়ারেন্টভূক্ত আসামী। সম্প্রতি এলাকায় যেসব ডাকাতি ও ছিনতাইয়ে ঘটনা ঘটছে প্রতিটি ঘটনার সাথে সে জড়িত ছিল। গ্রেপ্তারকৃত ডাকাতদের স্বীকারোক্তি তার নাম প্রথম সারিতে থাকায় পুলিশ বিভিন্ন স্থানে তাকে গ্রেপ্তারে অভিযান চালিয়েছে।

সংবাদ প্রকাশঃ  ২১-০-২০২২ইং সিটিভি নিউজ এর  (সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে দয়া করে ফেসবুকে লাইক বা শেয়ার করুন) (If you think the news is important, please share it on Facebook or the like  See More =আরো বিস্তারিত জানতে ছবিতে ক্লিক করুন=  

Print Friendly, PDF & Email